Alliance for Bangladesh Worker Safety

বাংলা

অ্যালায়েন্স কারখানা পরিস্থিতি


নিচের এই তালিকায় অন্তর্ভুক্ত রয়েছে সক্রিয়, নিস্ক্রিয় এবং স্থগিত কারখানাসমূহ । বর্তমানে অ্যালায়েন্স সদস্য কোম্পানিগুলোর জন্য পণ্য উৎপাদন করছে এমন কারখানাগুলোর তালিকা, অনুগ্রহপূর্বক দেখুন মাসিক সক্রিয় কারখানা তালিকা

কারখানার কম্প্লায়েন্সের বিষয়টি অ্যালায়েন্স অত্যন্ত গুরুত্বের সঙ্গে বিবেচনা করে থাকে, কোনো কারখানা শর্তাবলী মেনে চলতে ব্যর্থ হলে সেই কারখানার কর্মপরিবেশ অনিরাপদ হয়ে উঠতে পারে ফলে শ্রমিকদের জীবন ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে উঠবে । যদিও প্রাথমিক পরিদর্শন এবং রিপোর্ট চুড়ান্তকরণ হওয়ার পর কারখানাগুলোকে অ্যালায়েন্স কমপ্লায়েন্ট কারখানা তালিকার অন্তর্ভুক্ত করে নেয়া হবে, তবে সময়ের সাথে সাথে কারখানাগুলোকে অবশ্যই কম্প্লায়েন্স বজায় রেখে চলতে হবে । কমপ্লায়েন্স অব্যাহত রাখতে যা যা প্রয়োজন তা নিম্নে দেয়া হলো:

  • কারেকটিভ অ্যাকশন প্ল্যান সময়মত সম্পন্ন হয়েছে কিনা সেই অগ্রগতি প্রদর্শন, অ্যালায়েন্স –অনুমোদিত সাইট ভিজিট কর্তৃক নন-কম্প্লায়েন্স কারখানা বন্ধ এবং দাখিলকৃত তথ্য প্রমানের পর্যালোচনা;
  • উপরোক্ত কাজ যৌক্তিক সময়সীমার মধ্যে সম্পূর্ণকরণ; এবং
  • প্রশিক্ষণ, হেল্পলাইন এবং অন্যান্য শ্রমিক ক্ষমতায়ন কর্মসূচিতে অংশগ্রহন ।

স্বচ্ছতা বৃদ্ধিকরণে এবং অগ্রগতিতে সহায়তা করতে, প্রত্যেকটি অ্যালায়েন্স শর্তানুসারে অ্যালায়েন্স স্ট্যাটাস তৈরি করেছে, যা ব্যবহৃত হবে প্রতিটি কারখানার সামগ্রীক অবস্থা নির্ধারণে । নিয়মিতভাবে এই স্ট্যাটাসের হালনাগাদকরণ করা হবে ।

কার্যক্রম এলাকা অনুসারে কারখানার অবস্থা

  • সম্পন্ন: কারখানা প্রাথমিক অ্যালায়েন্স শর্তাবলী পুরণ সম্পন্ন করেছে
  • অগ্রগতি লাভ করছে: অ্যালায়েন্স শর্তানুসারে যথেষ্ট অগ্রগতি লাভ করছে
  • হস্তক্ষেপ প্রয়োজন: অনেক পিছিয়ে পড়েছে কিংবা অ্যালায়েন্সের শর্তাবলী অনুসরণ প্রত্যাখ্যান করেছে
  • সংকটপূর্ণ: অ্যালায়েন্স শর্তাবলী মেনে চলায় কতটুকু ঘাটতি আছে তার ওপর ভিত্তি করে অ্যালায়েন্স কমপ্লায়েন্ট কারখানা তালিকা থেকে বাদ পড়ে যাওয়ার মত ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় আছে
  • অ্যাকর্ডের অধীনে: কারখানা সংস্কার কাজ চলছে অ্যাকর্ডের অধীনে; অন্যান্য অ্যালায়েন্স প্রোগ্রামে সক্রিয় কারখানা

সামগ্রীক কারখানার অবস্থা

  • অংশগ্রহনকারী: অ্যালায়েন্সের শর্তাবলী অনুসারে অগ্রগতি লাভ করছে ( নোট: অ্যালায়েন্স কমপ্লায়েন্ট কারখানা তালিকা থেকে অফিসিয়ালি অপসারণ করার পূর্ব পর্যন্ত, স্থগিত হওয়ার মতো ঝুঁকিপূর্ণ অবস্থায় থাকা কারখানা এর ভেতর অন্তর্ভুক্ত )
  • স্থগিত: অ্যালায়েন্স শর্তাবলীর একটি অথবা একাধিক শর্ত মেনে চলায় কতটুকু ঘাটতি আছে তার ওপর ভিত্তি করে অ্যালায়েন্স কমপ্লায়েন্ট কারখানা তালিকা থেকে বাদ পড়ে যাওয়া
  • অ্যাকর্ডে হস্তান্তর: অ্যাকর্ডের নিকট হস্তান্তর করা হয়েছে কেননা ওই সমস্ত কারখানাগুলো বর্তমানে অ্যালায়েন্সের সদস্য কোম্পানিগুলোর জন্য পণ্য উৎপাদন করছেনা কিন্তু সেগুলো অ্যাকর্ড ব্র্যান্ডগুলোতে সক্রিয়

একটি অথবা একাধিক ক্ষেত্রে পিছিয়ে পড়েছে এমন কারখানাগুলোকে সম্পৃক্তকরণের জন্য অ্যালায়েন্স সদস্য কোম্পানিগুলো সর্বাত্নক প্রচেষ্টা করেছে । যে সমস্ত কারখানা ধারাবাহিকভাবে অগ্রগতি প্রদর্শনে ব্যর্থ হবে তারা অ্যালায়েন্সের এসকেলেশন প্রক্রিয়ার (escalation process ) আওতাভুক্ত হয়ে যায় এবং এরপরেও ব্যর্থ হলে চুড়ান্তভাবে অ্যালায়েন্স কমপ্লায়েন্ট কারখানা তালিকা থেকে বাদ পড়ে যায় – এই সমস্ত কারখানাগুলোকে আখ্যা দেয়া হয়েছে “স্থগিত” । স্থগিতকৃত কারখানা যদি পুণরায় অংশগ্রহন করতে চায় তাহলে নতুন করে তাদের কারখানা পরিদর্শন করা হবে এবং কারখানাকে উক্ত পরিদর্শন ব্যায় বহন করতে হবে ।

এই সমস্ত স্ট্যাটাস নিয়মিত হালনাগাদ করা হয় এবং এখানে কারখানার সর্বশেষ অগ্রগতির প্রতিফলন নাও থাকতে পারে । সর্বশেষ হালনাগাদ: ডিসেম্বর ১৪ ২০১৭

কারখানার নাম পরিদর্শন সংস্কার রমিক প্রশিক্ষণ সিকিউরিটি গার্ড প্রশিক্ষণ শ্রমিক ক্ষমতায়ন সামগ্রিক পরিস্থিতি

অ্যালায়েন্স সম্পর্কে বারংবার করা প্রশ্ন

বিস্তারিত এফএকিউ –এ দেখুন অ্যালায়েন্স সম্পর্কে বারংবার করা প্রশ্ন এবং সেগুলোর উত্তর

দ্রুত যোগাযোগ

অনুগ্রহপূর্বক সাধারণ এবং গণমাধ্যম ঊভয় অনুসন্ধানের জন্য এখানে ক্লিক করুন ।